ব্রেকিং নিউজ

রাসিক সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন নিশ্চিত নির্বাচনে আরএমপি ও র‌্যাব-৫ এর পরিকল্পনা ও কার্যক্রম

ওবায়দুল ইসলাম রবি, রাজশাহী
রাজশাহী, বাংলাদেশের অন্যতম প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী মহানগরী। রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন বাংলাদেশের সবচেয়ে পরিবেশবান্ধব গ্রীনসিটি হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে। আগামী ২১ জুন ২০২৩ তারিখে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন-২০২৩ অনুষ্টিত হবে। আগামীকাল বুধবার (২১ জুন) ২০২৩ খ্রি. রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন (রাসিক) নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ উপলক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট এলাকায় বিভিন্ন যানবাহন চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ।

রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন-২০২৩ উপলক্ষ্যে রাজশাহী মহানগরী পুলিশের পরিকল্পনায় জাননো হয়, নির্বাচন এলাকায় ২০ জুন ২০২৩ খ্রি. দিবাগত মধ্যরাত ১২.০০ ঘটিকা হতে ২১ জুন ২০২৩ খ্রি. তারিখ মধ্যরাত ১২.০০ ঘটিকা পর্যন্ত ট্রাক, বাস, মিনিবাস, মাইক্রোবাস, জীপ, পিকআপ, কার, ইজিবাইক, লঞ্চ, ট্রলার, স্পীড বোট, টেম্পো, বেবিট্যাক্সি/অটোরিক্সা এবং অন্যান্য সব যন্ত্রচালিত যানবাহন নসিমন, করিমন, ভটভটি, টমটম ইত্যাদি চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। এ নিষেধাজ্ঞা সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং অফিসারের অনুমতি সাপেক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী/তাঁদের নির্বাচনী এজেন্ট, দেশী/বিদেশী পর্যবেক্ষকদের (পরিচয়পত্র থাকতে হবে) ক্ষেত্রে শিথিলযোগ্য। তাছাড়া নির্বাচনের সংবাদ সংগ্রহের কাজে নিয়োজিত দেশী-বিদেশী সাংবাদিক (পরিচয়পত্র থাকতে হবে), নির্বাচনী কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তা-কর্মচারী, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, নির্বাচনের বৈধ পরিদর্শক এবং কতিপয় জরুরী কাজে যেমন-এ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিস, বিদ্যুৎ, গ্যাস, ডাক, টেলিযোগাযোগ ইত্যাদি কার্যক্রমে ব্যবহারের জন্য উল্লিখিত যানবাহন চলাচলের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না।
এতদ্ব্যতীত জাতীয় মহাসড়ক (ঐরমযধিুং), বন্দর ও জরুরী পণ্য সরবরাহসহ অন্যান্য জরুরী প্রয়োজনে উল্লিখিত যানবাহন চলাচলের ক্ষেত্রে এ নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। এছাড়া জনসাধারণের চলাচলের একমাত্র মাধ্যম হিসেবে নৌ-যান ও দূর পাল্লার নৌ-যান চলাচলের ক্ষেত্রেও নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে আরএমপির পক্ষ থেকে নিষেধাজ্ঞায় উল্লেখ করা হয়।
অপরদিকে র‌্যাপিড এ্যাকশনা ব্যাটালিয়ান (র‌্যাব-৫) সংবাদ সম্মলনের মাধ্যমে জানায়, নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন নিশ্চিত করতে র‌্যাব বদ্ধপরিকর। আগামীকাল ভোর ৬টা থেকে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অন্যান্য আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি র‌্যাব এর অফিসার, ডিএডিসহ মোট ৩০০ জন র‌্যাব সদস্য মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স, সাদা পোশাকে গোয়েন্দা এবং বোমা নিস্ক্রিয়কারী হিসেবে নির্বাচনে আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নিয়োজিত থাকবে। র‌্যাব-৫ এর ১৫টি মোবাইল ও স্ট্রাইকিং পেট্রোল, স্ট্রাইকিং ফোর্স কমান্ডারসহ ১০টি জীপ, ০২টি স্ট্রাইকিং ফোর্স রিজার্ভ টিম, সাদা পোশাকে গোয়েন্দা দল, সুপার মোবাইল মোটরসাইকেল টিম এবং এ্যাম্বুলেন্স নির্বাচনের দিন আইন-শৃংখলা নিয়ন্ত্রনে নিয়োজিত থাকবে। যেকোন উদ্বুত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রয়নের জন্য র‌্যাব-৫ এর বোম ডিসপোজাল ইউনিট প্রস্তুত রয়েছে। র‌্যাব সদর দপ্তরে র‌্যাবের স্পেশাল ফোর্স হেলিকাপ্টারসহ যেকোন পরিস্থিতিতে মোতায়েন এর জন্য প্রস্তুত রয়েছে। এছাড়াও সার্বিক পরিস্থিতি তদারকির জন্য নির্বাচন সেল এবং কন্টোল রুম স্থাপন করা হয়েছে।
নির্বাচন পূর্ববর্তী ১০ জুন হতে ১৫ জুন ২০২৩ পর্যন্ত প্রতিদিন ২৪/৭ পেট্রোলিং এর পাশাপাশি সন্ধ্যা থেকে রাত্রী পর্যন্ত সকল আইন-শৃংখলা বাহিনীর সাথে যৌথবাহিনীর অংশ হিসেবে ডমিনেশন পেট্রোল পরিচালনা করেছে। ১৬ জুন সকাল থেকে ১৮ জুন রাত পর্যন্ত রোবাস্ট পেট্রোলিং পরিচালনা এবং শহরে ঢোকা ও বাহির হওয়ার পয়েন্টে চেকপোষ্ট স্থাপন করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী ১৯ জুন ভোর ০৬০০ ঘটিকা হতে নির্বাচন পরবর্তী ২২ জুন ২০২৩ তারিখ পর্যন্ত র‌্যাবের সকল কার্যক্রম বলবৎ থাকবে। নির্বাচনে কেউ বাধা সৃষ্টি করলে অথবা সহিংসতা বা নাশকতা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে র‌্যাব কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। অবৈধ অনুপ্রবেশ কারী অথবা সিটি কর্পোরেশন এলাকার ভোটার নন এরকম নাগরিকদের নির্বাচনী এলাকা ত্যাগ অথবা ভোটের দিন নির্বাচন কমিশনের বিধি নিষেধ মেনে চলার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে। নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখার লক্ষে অনুপ্রবেশকারী কোন ব্যক্তিদের অপতৎপরতা আইন-শৃংখলা বাহিনী কঠোর ভাবে দমন করবে।

অবৈধ অস্ত্রের ব্যাপারে র‌্যাবের গোয়েন্দা নজরদারী অব্যাহত রয়েছে এবং আমরা ইতি মধ্যে বেশ কিছু অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করেছি। নির্বাচন কমিশনের বিধি নিষেধ অনুযায়ী নির্বাচন চলাকালে সকল নাগরিক’কে কোন প্রকার লাইসেন্স ধারী অস্ত্র বহন ও প্রদর্শন না করার জন্য কঠোর ভাবে অনুরোধ করা হচ্ছে। নির্বাচন চলাকালীন সময়ে প্রত্যেক নাগরিক’কে নিজ নিজ এনআইডি কার্ড বহন এবং জেলা প্রশাসন এর নির্দেশনা অনুযায়ী অঅনুমোদিত যানবাহন ব্যবহার না করার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে। নির্বাচনী বিধিনিষেধ পরিপন্থি কোন কার্যক্রম ঘটলে আপনারা রিটার্নিং অফিসারকে অবহিত করবেন। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ ও আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নিয়োজিত ম্যাজিস্ট্রেট কোন সহযোগিতা চাইলে র‌্যাব দ্রুততম সময়ে সহযোগিতা করতে প্রস্তুত থাকবে। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা বাস্তবায়ন ও নির্বাচনী এলাকায় আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে র‌্যাব ফোর্সেস বন্ধপরিকর।

Leave A Reply

Your email address will not be published.