ব্রেকিং নিউজ

নিরাপদে ডায়াবেটিস রোগীর রোজা পালনের ভিন্নধর্মী উদ্যোগ

রোজা ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের মধ্যে অন্যতম একটি। রোজা মানুষকে সুশৃঙ্খল জীবনযাপনে উদ্বুদ্ধ করে। আত্মসংযম, আত্মনিয়ন্ত্রণ, আত্মশুদ্ধিতা, ধৈর্য ও তাকওয়া অর্জনের অন্যতম প্রধান উপায় রোজা। সাধারণের জন্য মেনে চলা সহজ হলেও ডায়াবেটিস রোগীরা পড়েন দ্বিধাদ্বন্দ্বে। রোজা রাখতে পারবেন কিনা। কারণ রোজায় খাদ্যাভ্যাস ও খাওয়ার সময়সূচিতে বড় ধরনের পরিবর্তন আসে। সুশৃঙ্খল জীবন ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য অপরিহার্য।

আর পূ্র্ব প্রস্তুতি গ্রহণের পাশাপাশি ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে সচেতনতা তৈরিতে আসন্ন রমজান মাসকে ডায়বেটিস ও রমজান সচেতনতা মাস হিসেবে ঘোষণা করেছে বাংলাদেশের এন্ডোক্রাইনোলজিস্টদের প্রাণের সংঠন অ্যাসেসিয়েশন অব ক্লিনিক্যাল এন্ডোক্রাইনোলোজিস্ট অ্যান্ড ডায়াবেটোলজিস্ট অব বাংলাদেশ (এসেডবি)।

এরই ধারাবাহিকতায় ২৭ জানুয়ারি দুপুর ৩টায় রাজধানীর ঢাকা ক্লাবে এর শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করা হয়। যেখানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সেবা বিভাগের সচিব ডা. মো. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার।

প্রধান অতিথি ডা. মো. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার জানান, ডায়াবেটিস রোগীদের কথা মাথায় রেখে যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে এসেডবি, তা সত্যিই প্রশংসার দাবিদার। এসেডবির এ উদ্যোগটিকে দেশব্যাপী ছড়িয়ে দিতে বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেওয়ার পাশাপাশি কর্মসূচি হাতে নেওয়ার কথা ব্যক্ত করেন তিনি।

এসেডবির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মো. ফরিদ উদ্দিন জানান, একটি গবেষণায় উঠে এসেছে ৮০ শতাংশ ডায়াবেটিস রোগী রোজা রাখেন, তবে এর মধ্যেই ৫০ শতাংশেরও বেশি রোগী চিকিৎসকের পরামর্শ না নিয়েই রোজা রাখেন। যার ফলে নানা ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। এজন্য প্রয়োজন প্রস্তুতি আর সচেতনতা।

Leave A Reply

Your email address will not be published.