ক্ষমার দশকে মুমিনের দোয়া

0

মাগফেরাত তথা ক্ষমার দশক হিসেবে পরিচিত রমজানের দ্বিতীয় দশক। আজ দ্বিতীয় দশকের প্রথম দিন। ক্ষমার দশকে রমজানের বিশেষ ফজিলত হলো- গুনাহমুক্ত জীবন পাওয়া। ক্ষমার এ দশকে মহান রবের কাছে নিজেদের গুনাহগুলো মাফ করিয়ে নেওয়াই রোজাদারের জন্য সর্বোত্তম সময়। মাগফেরাতের এ দশকে যেন রোজাদার মাত্রই গুনাহ থেকে মুক্তি পায়। এ দশকে ক্ষমা পেতে কী পড়বেন রোজাদার মুমিন?

ক্ষমার এ দশকে শারীরিক প্রতি অঙ্গকে গুনাহ থেকে বিরত রাখাই প্রথম কাজ। চোখ, কান, মুখ, হাত-পাসহ প্রতিটি অঙ্গকে গুনাহের কাজ থেকে মুক্ত রাখা। সব সময় তাসবির মতো ছোট্ট এ ক্ষমা প্রার্থনার দোয়াটি বেশি বেশি পড়া-

উচ্চারণ : ‘আল্লাহুম্মাগফিরলানা; ফা-ইন্নাকা খাইরুল গাফিরিন।’

অর্থ : ‘হে আল্লাহ! আপনি আমাদের ক্ষমা করে দিন; আপনিই তো সর্বোত্তম ক্ষমাকারী।’

ক্ষমা পাওয়ার উপায় কী?

এ দশকে রোজা পালনের পাশাপাশি আল্লাহর কাছে ক্ষমা পাওয়ার সর্বোত্তম মাধ্যম কী? আল্লাহ তাআলা কোন কোন আমল ও দোয়ায় বান্দাকে ক্ষমা করে দেন? আল্লাহর কাছে ক্ষমা পাওয়ার দোয়াগুলোই বা কী?

ক্ষমা পাওয়ার অন্যতম মাধ্যম আল্লাহর কাছে তাওবা করা। রোজা রেখে প্রথমত নিজেকে অন্যায় ও গুনাহের কাজ থেকে বিরত রাখা। তারপর ক্ষমা চেয়ে আল্লাহর দিকে ফিরে আসা। এটি ক্ষমা পাওয়ার অন্যতম উপায়।

কোরআন ও সুন্নায় বেশি বেশি তাওবা-ইসতেগফার করার ব্যাপারে বিশেষভাবে তাগিদ দেওয়া হয়েছে। কেননা গুনাহমুক্ত জীবনের অন্যতম উপায় হচ্ছে তাওবা-ইসতেগফার করা। আল্লাহ তাআলা ঘোষণা করেন-

وَمَن يَعْمَلْ سُوءًا أَوْ يَظْلِمْ نَفْسَهُ ثُمَّ يَسْتَغْفِرِ اللّهَ يَجِدِ اللّهَ غَفُورًا رَّحِيمًا

‘যে গুনাহ করে কিংবা নিজের অনিষ্ট করে, এরপর আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে, সে আল্লাহকে ক্ষমাশীল, করুণাময় পায়।’ (সুরা নিসা : আয়াত ১১০)

وَتُوْبُوْا إِلَى اللهِ جَمِيْعاً أَيُّهَا الْمُؤْمِنُوْنَ لَعَلَّكُمْ تُفْلِحُوْنَ

‘(হে মুমিনগণ!) তোমরা সবাই আল্লাহর দিকে প্রত্যাবর্তন করো, যাতে তোমরা সফলকাম হতে পার।’ (সুরা নুর : আয়াত ৩১)

রমজানের এ দশকে ক্ষমা পেতে বেশি বেশি তাওবা-ইসতেগফার করা জরুরি। ক্ষমার দশকে যেসব তাওবা-ইসতেগফার করার মাধ্যমে বিগত জীবনের গুনাহ থেকে মুক্তির আশা করা যায়; সেসব ছোট-বড় তাওবা-ইসতেগফার তুলে ধরা হলো-

১. أَستَغْفِرُ اللهَ

উচ্চারণ : ‘আস্তাগফিরুল্লাহ।’

অর্থ : আমি আল্লাহর ক্ষমা প্রার্থনা করছি।

নিয়ম : প্রতি ওয়াক্ত ফরজ নামাজের সালাম ফেরানোর পর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এ ইসতেগফারটি ৩ বার পড়তেন।’ (মিশকাত)

২. أَسْتَغْفِرُ اللهَ وَأَتُوْبُ إِلَيْهِ

উচ্চারণ : ‘আস্তাগফিরুল্লাহা ওয়া আতুবু ইলাইহি।’

অর্থ : আমি আল্লাহর ক্ষমা প্রার্থনা করছি এবং তাঁর দিকেই ফিরে আসছি।

নিয়ম : এ ইসতেগফারটি প্রতিদিন ৭০/১০০ বার পড়া। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম প্রতিদিন ৭০ বারের অধিক তাওবাহ ও ইসতেগফার করতেন।’ (বুখারি)

৩. رَبِّ اغْفِرْ لِيْ وَتُبْ عَلَيَّ إِنَّكَ (أنْتَ) التَّوَّابُ الرَّحِيْمُ

উচ্চারণ : ‘রাব্বিগ্ ফিরলি ওয়া তুব আলাইয়্যা ইন্নাকা (আংতাত) তাওয়্যাবুর রাহিম।’

অর্থ : ‘হে আমার প্রভু! আপনি আমাকে ক্ষমা করুন এবং আমার তাওবাহ কবুল করুন। নিশ্চয় আপনি মহান তাওবা কবুলকারী করুণাময়।’

নিয়ম : রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মসজিদে বসে এক বৈঠকেই এই দোয়া ১০০ বার পড়েছেন।’ (আবু দাউদ, ইবনে মাজাহ, তিরমিজি, মিশকাত)

৪. أَسْتَغْفِرُ اللَّهَ الَّذِي لاَ إِلَهَ إِلاَّ هُوَ الْحَىُّ الْقَيُّومُ وَأَتُوبُ إِلَيْهِ

উচ্চারণ : ‘আস্‌তাগফিরুল্লা হাল্লাজি লা ইলাহা ইল্লা হুওয়াল হাইয়্যুল কইয়্যুমু ওয়া আতুবু ইলায়হি।’

অর্থ : ‘আমি ওই আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাই, যিনি ছাড়া প্রকৃতপক্ষে কোনো মাবুদ নেই, তিনি চিরঞ্জীব, চিরস্থায়ী এবং তাঁর কাছেই (তাওবাহ করে) ফিরে আসি।’

নিয়ম : দিনের যে কোনো ইবাদত-বন্দেগি তথা ক্ষমা প্রার্থনার সময় এভাবে তাওবাহ-ইসতেগফার করা। হাদিসে এসেছে- এভাবে তাওবাহ-ইসতেগফার করলে আল্লাহ তাআলা তাকে ক্ষমা করে দেবেন, যদিও সে যুদ্ধক্ষেত্র থেকে পলায়নকারী হয়।’ (আবু দাউদ, তিরমিজি, মিশকাত)

৫. সাইয়েদুল ইসতেগফার পড়া

اللَّهُمَّ أَنْتَ رَبِّي لَا إِلَهَ إِلَّا أَنْتَ خَلَقْتَنِي وَأَنَا عَبْدُكَ وَأَنَا عَلَى عَهْدِكَ وَوَعْدِكَ مَا اسْتَطَعْتُ أَعُوذُ بِكَ مِنْ شَرِّ مَا صَنَعْتُ أَبُوءُ لَكَ بِنِعْمَتِكَ عَلَيَّ وَأَبُوءُ لَكَ بِذَنْبِي فَاغْفِرْ لِي فَإِنَّهُ لَا يَغْفِرُ الذُّنُوبَ إِلَّا أَنْتَ

উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা আংতা রাব্বি লা ইলাহা ইল্লা আংতা খালাক্কতানি ওয়া আনা আবদুকা ওয়া আনা আলা আহ্দিকা ওয়া ওয়াদিকা মাসতাতাতু আউজুবিকা মিন শাররি মা সানাতু আবুউলাকা বিনিমাতিকা আলাইয়্যা ওয়া আবুউলাকা বিজাম্বি ফাগ্ফিরলি ফা-ইন্নাহু লা ইয়াগফিরুজ জুনুবা ইল্লা আংতা।’

অর্থ : ‘হে আল্লাহ! তুমিই আমার প্রতিপালক। তুমি ছাড়া কোনো ইলাহ নেই। তুমিই আমাকে সৃষ্টি করেছ। আমি তোমারই বান্দা আমি যথাসাধ্য তোমার সঙ্গে প্রতিজ্ঞা ও অঙ্গীকারের উপর আছি। আমি আমার সব কৃতকর্মের কুফল থেকে তোমার কাছে আশ্রয় চাই। তুমি আমার প্রতি তোমার যে নেয়ামত দিয়েছ তা স্বীকার করছি। আর আমার কৃত গোনাহের কথাও স্বীকার করছি। তুমি আমাকে ক্ষমা করে দাও। কারন তুমি ছাড়া কেউ গোনাহ ক্ষমা করতে পারবে না।’

নিয়ম : সকালে ও সন্ধ্যায় এ ইসতেগফার করা। ফজর ও মাগরিবের নামাজের পর এ ইসতেগফার পড়তে ভুল না করা। কেননা হাদিসে এসেছে- যে ব্যক্তি এ ইসতেগফার সকালে পড়ে আর সন্ধ্যার আগে মারা যায় কিংবা সন্ধ্যায় পড়ে সকাল হওয়ার আগে মারা যায়, তবে সে জান্নাতে যাবে।’ (বুখারি)

এছাড়াও ওঠা-বসায় এভাবেও তাওবা-ইসতেগফার করা যেতে পারে। তাহলো-

৬. اَسْتَغْفِرُ اللهَ رَبِّىْ مِنْ كُلِّ ذَنْبٍ وَ اَتُوْبُ اِلَيْهِ

উচ্চারণ : ‘আসতাগফিরুল্লাহ রব্বি মিন কুল্লি যামবিন ওয়াতুবু ইলাইহি।’

অর্থ : ‘আমি আমার প্রভু আল্লাহর কাছে আমার সমুদয় পাপের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করছি এবং তারই দিকে প্রত্যাবর্তন করছি।’

৭. سَمِعْنَا وَأَطَعْنَا غُفْرَانَكَ رَبَّنَا وَإِلَيْكَ الْمَصِيرُ

উচ্চারণ : ‘সামি’না ওয়া আতানা গুফরানাকা রাব্বানা ওয়া ইলাইকাল মাসির।’

অর্থ : ‘আমরা (আল্লাহ তাআলার আদেশ) শুনলাম ও মানলাম, হে আমাদের প্রভু-প্রতিপালক! আমরা তোমারই কাছে ক্ষমা চাই আর তোমারই দিকে সবার ফিরে যেতে হবে।’ (সুরা বাকারা: আয়াত ২৮৫)

৮. رَبَّنَا مَا خَلَقْتَ هَذا بَاطِلاً سُبْحَانَكَ فَقِنَا عَذَابَ النَّارِ

উচ্চারণ : ‘রাব্বানা মা খালাকতা হাজা বাতিলাং সুবহানাকা ফাকিনা আজাবান নার।’

অর্থ : ‘হে আমাদের প্রভু! তুমি এ বিশ্বজগতকে বৃথা সৃষ্টি করনি। তুমি পবিত্র। সুতরাং তুমি আমাদের আগুনের শাস্তি থেকে রক্ষা কর।’ (সুরা আল-ইমরান : আয়াত ১৯১)

৯. لَئِن لَّمْ يَرْحَمْنَا رَبُّنَا وَيَغْفِرْ لَنَا لَنَكُونَنَّ مِنَ الْخَاسِرِينَ

উচ্চারণ : ‘লা ইল্লাম ইয়ারহামনা রাব্বুনা ওয়া ইয়াগফির লানা লানাকুনান্না মিনাল খাসিরিন।’

অর্থ : ‘আমাদের প্রতিপালক! আমাদের ওপর যদি কৃপা না করেন এবং আমাদের ক্ষমা না করেন তাহলে অবশ্যই আমরা ক্ষতিগ্রস্তদের অন্তর্ভুক্ত হব।’ (সুরা আরাফ : আয়াত ১৪৯)

বিশেষ করে হজরত আদম আলাইহিস সালাম যে দোয়া পাঠ করার ফলে আল্লাহ তাআলার ক্ষমার কাছে ক্ষমা পান। সেটিও বেশি বেশি করা যেতে পারে-

১০. رَبَّنَا ظَلَمْنَا أَنفُسَنَا وَإِن لَّمْ تَغْفِرْ لَنَا وَتَرْحَمْنَا لَنَكُونَنَّ مِنَ الْخَاسِرِينَ

উচ্চারণ : ‘রাব্বানা যালামনা আনফুসানা ওয়া ইল্লাম তাগফির লানা ওয়া তারহামনা লানাকুনান্না মিনাল খাসিরিন।’

অর্থ : ‘হে আমাদের প্রভু-প্রতিপালক! নিশ্চয় আমরা আমাদের প্রাণের ওপর অত্যাচার করেছি আর তুমি যদি আমাদেরকে ক্ষমা না কর ও আমাদের প্রতি কৃপা না কর তাহলে অবশ্যই আমরা ক্ষতিগ্রস্তদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাব।’ (সুরা আরাফ : আয়াত ২৩)

মনে রাখা জরুরি

কোনো রোজাদারই যেন ক্ষমার দশকের আল্লাহর ক্ষমা থেকে বঞ্চিত না হয়। রমজানের গুরুত্বপূর্ণ সময়গুলো যে বৃথা নষ্ট না হয়। শারীরিক, বাহ্যিক ও আত্মিক সব ধরনের গুনাহ ও অন্যায় থেকে বিরত থেকে তাওবা-ইসতেগফার, ইফতার-সেহরি, তারাবি-তাহাজ্জুদে নিয়োজিত থাকা। আর তাতেই মিলবে মহান রবের পক্ষ থেকে ক্ষমা। রোজাদার মুমিন হবেন সফল।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে ক্ষমার দশকে কোরআন-সুন্নায় বর্ণিত তাওবা-ইসতেগফার ও ইবাদত-বন্দেগিতে অতিবাহিত করার তাওফিক দান করুন। গুনাহমুক্ত হয়ে পবিত্র জীবন পাওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.