সেই পাঠাও চালককে বাইক দেবেন গোলাম রাব্বানী

0

রাস্তায় বারবার ট্রাফিক পুলিশের মামলার প্রতিবাদে সোমবার সকালে রাজধানীর বাড্ডা লিংক রোডে পুলিশের সামনে শওকত আলম সোহেল নামে এক বাইকার নিজেই তার মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এবার দেশব্যাপী আলোচিত পাঠাও চালক শওকত আলম সোহেলকে মোটর সাইকেল উপহার দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী।

গোলাম রাব্বানী তার ভেরিফাইড ফেসবুক আইডি এই ঘোষণ দিয়ে জানান,কটা মানুষ কতটা কষ্ট পেলে, কতটা অসহায়ত্ব তাকে গ্রাস করলে ক্ষোভে-দুঃখে উপার্জনের একমাত্র অবলম্বন, মোটরসাইকেলটি আগুনে পুড়িয়ে দেয়, মানবিক হৃদয় দিয়ে সেটা অনুধাবনের চেষ্টা করুন!

নিম্নে গোলাম রাব্বানীর স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলো..
জনাব শওকত আলম সোহেল; করোনা দুর্যোগে নিজের ছোট্ট দোকানের ব্যবসা বন্ধ হয়ে গেলে, জীবন জীবিকার তাগিদে কয়েকমাস যাবত পাঠাও রাইডার হিসেবে রাস্তায় নামেন!

চরম অর্থনৈতিক দৈন্যদশার মাঝে ‘মরার উপর খাঁড়ার ঘা’… একটা মানুষ কতটা কষ্ট পেলে, কতটা অসহায়ত্ব তাকে গ্রাস করলে ক্ষোভে-দুঃখে উপার্জনের একমাত্র অবলম্বন, মোটরসাইকেলটি আগুনে পুড়িয়ে দেয়, মানবিক হৃদয় দিয়ে সেটা অনুধাবনের চেষ্টা করুন!

আমি Team Positive Bangladesh (TPB) এর পক্ষ থেকে ‘দেশরত্ন শেখ হাসিনার ভালোবাসার উপহার’ হিসেবে শওকত আলম ভাইকে একটি ভালো মানের মোটরসাইকেল কিনে দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করছি। তার সাথে ফোনে কথা হয়েছে, কিছুক্ষণ পরেই টিপিবি’র অফিসে আসবে। সরাসরি কথা বলে দ্রুততম সময়ে বাইক হস্তান্তর করা হবে ইনশাআল্লাহ।

আর আজকে বাংলাদেশ পুলিশের সুযোগ্য মহাপরিদর্শক, শ্রদ্ধেয় ডঃ Benazir Ahmed এর জন্মদিনে তাঁর গুণমুগ্ধ ভক্ত ও স্নেহাশিস অনুজ হিসেবে আকুল আবেদন, এই দুর্যোগকালীন সময়ে রাইড শেয়ারিং এপ্লিকেশন ভিত্তিক লক্ষাধিক সাধারণ চালকদের অসহায়ত্বের কথা বিবেচনা করে, তাদের প্রতি নমনীয়, সহনশীল আচরণ ও মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি প্রদর্শন করতে দেশব্যাপী ট্রাফিক পুলিশের প্রতি যথাযথ নির্দেশনা দেবেন। শওকত আলম ভাইয়ের মতো আরো অনেকেই আছেন, যারা পেশাদার চালক নন, করোনা দুর্যোগকালীন উদ্ভুত পরিস্থিতিতে চাকরি/ ব্যবসা হারিয়ে বাধ্য হয়ে বাইক নিয়ে রাস্তায় নেমেছেন।

প্রসঙ্গত, পাঠাও চালক শওকত আলম সোহেলর বাড়ি কেরানীগঞ্জে। করোনা সংক্রমণ শুরুর আগে তিনি স্যানিটারি সামগ্রীর ব্যবসা করতেন। এতে তার লোকসান হয়। জীবিকা নির্বাহে শওকত দুই মাস ধরে বাইকে যাত্রী পরিবহন করতেন। তিনি অ্যাপভিত্তিক রাইড সেবা উবার ব্যবহার করতেন।

কয়েক দিন আগে পল্টনে ট্রাফিক আইন অমান্য করায় একটি মামলা হয় শওকতের নামে। এ মামলার টাকা পরিশোধ করার পর সকালে আবার মামলা দিতে যাচ্ছিলেন বাড্ডা এলাকার দায়িত্বে থাকা ট্রাফিক সার্জেন্ট। তখন ক্ষুব্ধ হয়ে বাইকের ট্যাংকি থেকে তেল বের করে তাতে আগুন ধরিয়ে দেন শওকত।

Leave A Reply

Your email address will not be published.